Home / Make Money Online / ইউটিউবের মাধ্যমে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়। সম্পূর্ণ গাইডলাইন।
, ইউটিউবের মাধ্যমে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়। সম্পূর্ণ গাইডলাইন।, How Reply Inc
Credit: https://www.cashoverflow.in/wp-content/uploads/2015/11/1-1.jpg

ইউটিউবের মাধ্যমে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যায়। সম্পূর্ণ গাইডলাইন।

বিশ্বের ২য় র‍্যাংকিয়ে থাকা ওয়েবসাইট ( অ্যাালেক্সা র‍্যাংকিং অনুসারে ) ইউটিউব হলো সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও শেয়ারিং সাইট। প্রতি সেকেন্ডেই এখানে প্রচুর ভিডিও আপলোড করা হচ্ছে। ভিউয়াররা সেগুলো দেখছে এবং অবসর সময় পার করছে। আপনি যদি অনলাইনে আয়ের ব্যাপারে আগ্রহী থাকেন তাহলে আপনি ইতিমধ্যেই জেনে থাকবেন এই ভিডিও থেকেও টাকা আয় করা যায়। আজ আমি আলোচনা করার চেষ্টা করবো কিভাবে ভিডিও শেয়ারিং সাইটটি ব্যবহার করে আয় করা যায়। চলুন শুরু করা যাক।

কিভাবে শুরু করবেন?

এই সাইট থেকে আয় করতে হলে আপনাকে ভিডিও আপলোড করতে হবে। আর ভিডিও আপলোড করতে হলে আপনার দরকার হবে একটি চ্যানেলের। ইউটিউবে চ্যানেল না থাকলে ভিডিও আপলোড করা যায় না। তাই এখান থেকে আয় করতে হলে আপনাকে অবশ্যই একটা চ্যানেল খুলতে হবে। চলুন প্রথমে শিখে নেই কিভাবে ইউটিউবে চ্যানেল খুলতে হয়

কিভাবে একটি চ্যানেল খুলতে হয়?

এটা খুব একটা কঠিন কাজ নয়। আমরা প্রায় সবাই জিমেইল ব্যবহার করে থাকি। Youtube যেহেতু একটি গুগলের সার্ভিস তাই এখানে চ্যানেল খুলতে একটা জিমেইল অ্যাকাউন্ট হলেই হবে। একটা জিমেইল একাউন্ট দিয়ে সাইন ইন করে নাম এবং ফোন নাম্বার দিয়ে ভেরিফাই করলেই চ্যানেল তৈরী করা হয়ে যাবে। ইউটিউবে অনেক ভিডিও পাবেন এই সম্পর্কে। দেখে খুলে নিতে পারেন।

কিভাবে আয় করা যায়?

আয় করার জন্যে আমাদের চ্যানেল তৈরী করা শেষ। এখন ভিডিও আপলোড করার কাজ। আপনি যেই বিষয়ে দক্ষ আপনি যেই বিষয়ে কিছু ভিডিও তৈরী করুন। ভালো ভাবে এসইও করুন। ব্যস। প্রথম ধাপ সম্পন্ন। কিছু সাবস্ক্রাইবার এবং কিছু ভিউয়ার হলে ( ইউটিউবের নতুন পলিসি অনুযায়ী কমপক্ষে ১০০০ সাবস্ক্রাইবার এবং ৪০০০ ঘন্টা ভিউ টাইম ১২ মাসের মধ্যে থাকলে অ্যাডসেন্সের জন্যে আবেদন করা যাবে। ) মনিটাইজেশনের জন্যে আবেদন করবেন। আবেদন প্রক্রিয়া একদম সহজ। ইউটিউবে এ নিয়ে অনেক ভিডিও রয়েছে।

আবেদন করার পর আপনার ভিডিওগুলো অ্যাডসেন্স টিম রিভিও করবে। রিভিউ করে অ্যাপরুভ করলে আপনি আপনার ভিডিওতে এড দেখিয়ে আয় করতে পারবেন। আরো কিছু উপায়ে আয় করা যায়।

গুগল অ্যাডসেন্সঃ নিয়ম মেনে আবেদন করলে সর্বোচ্চ ৭ দিনের মধ্যে গুগল অ্যাপ্রুভাল দিয়ে সেয়। তারপর গুগল আপনার ভিডিওতে অ্যাড দেখিয়ে নিবে এবং তার বিনিময়ে আপনাকে একটা রেভিনিউ শেয়ার করবে। আপনি গুগলের আয়ের ৫৫ শতাংশ পর্যন্ত পাবেন।

স্পন্সরশীপঃ আপনার চ্যানেল যদি পপুলার হয়ে উঠে তাহলে অনেক কোম্পানী আপনাকে কিছু অর্থের বিনিময়ে তাদের পন্যের রিভিউ আপনার ভিডিওতে দিতে বলবে। আপনি রিভিও করলে তার বিনিময়ে তারা কিছু অর্থ আপনাকে দিবে। এভাবে আপনি আয় করতে পারেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংঃ আপনি আপনার ভিডিওতে বিভিন্ন পন্যের রিভিউ দিয়ে সেই পন্যের অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিংও করতে পারেন। এটি খুব জনপ্রিয় এবং অনেক লাভজনক একটা উপায় ইউটিউব থেকে আয়ের।

এছাড়া আরো অনেক উপায়ে আপনি আয় করতে পারবেন। যখন আপনি পপুলার হয়ে যাবেন বিভিন্ন চ্যানেল এবং ইভেন্ট থেকে ইনভাইট পাবেন। এটি থেকেও আয় হয়। আপনি আস্তে আস্তে আরো অনেক আয়ের উপায় নিজেই খুজে বের করতে সক্ষম হবেন।

আজ এই পর্যন্তই। আপনাদের কোনো প্রশ্ন থাকলে কমেন্টে করতে পারেন। ধন্যবাদ পোষ্টটি পড়ার জন্যে।

Check Also

, The Most Luxury Cars In The World [With Best Photos Of Cars], How Reply Inc

The Most Luxury Cars In The World [With Best Photos Of Cars]

Luxury Cars In The World – Luxury cars have actually constantly beautified publication covers as well …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *